চুয়েটের আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী, বিভিন্ন সেবা সংস্থা ও প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধিগণের সাথে সমন্বয় সভা অনুষ্ঠিত

7

ডেস্ক নিউজ : চট্টগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (চুয়েট)-এর আসন্ন ২০১৯-২০ শিক্ষাবর্ষের ¯œাতক প্রথম বর্ষের ভর্তি পরীক্ষা আগামী ১২ অক্টোবর (শনিবার), ২০১৯ খ্রি. সকাল ১০.০০ ঘটিকা থেকে বিকাল ৫.০০ ঘটিকা পর্যন্ত চুয়েট ক্যাম্পাসে অনুষ্ঠিত হবে। আসন্ন ভর্তি পরীক্ষা উপলক্ষ্যে অদ্য ০৩ অক্টোবর (বৃহস্পতিবার), ২০১৯ খ্রি. বিকেলে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী, বিভিন্ন সেবা সংস্থা ও প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধিগণের সাথে এক সমন্বয় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। নগরীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউট অব বাংলাদেশ (আইইবি), চট্টগ্রাম কেন্দ্রস্থ চুয়েট রিসোর্স সেন্টারে আয়োজিত উক্ত সমন্বয় সভায় সভাপতিত্ব করেন চুয়েটের মাননীয় ভাইস চ্যান্সেলর অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ রফিকুল আলম।

উল্লেখ্য, এবারের ভর্তি পরীক্ষায় ১২টি বিভাগে ভর্তির জন্য নিয়মিত ৮৯০ আসনের (১১ টি উপজাতি কোটাসহ মোট ৯০১ আসন) বিপরীতে মোট ১০ হাজার ৯৭২ জন পরীক্ষার্থী অংশগ্রহণ করবেন। এরমধ্যে ক/কঅ গ্রুপে (ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগসমূহ এবং নগর ও অঞ্চল পরিকল্পনা বিভাগ) মোট ১০ হাজার ৩১ জন এবং খ/কঐঅ গ্রুপে (ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগসমূহ, নগর ও অঞ্চল পরিকল্পনা বিভাগ এবং স্থাপত্য বিভাগ) মোট ৯৪১ জন পরীক্ষার্থী অংশগ্রহণ করবেন।

সমন্বয় সভায় আসন্ন ভর্তি পরীক্ষা-২০১৯ উপলক্ষ্যে চুয়েট প্রশাসনের পক্ষ থেকে আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি ও ট্রাফিক নিয়ন্ত্রণ এবং সার্বিক নিরাপত্তা ব্যবস্থা বিয়য়ে বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি সেবা সংস্থার প্রতিনিধিদের কাছে সহযোগিতা কামনা করে চুয়েটের মাননীয় ভাইস চ্যান্সেলর অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ রফিকুল আলম বলেন, “চুয়েট বাংলাদেশের দক্ষিণাঞ্চলের প্রকৌশল শিক্ষার অন্যতম সেরা বিদ্যাপীঠ। চুয়েটের ভর্তি পরীক্ষা অত্যন্ত পরিচ্ছন্ন উপায়ে অনুষ্ঠিত হওয়ায় সারাদেশে একটি সুনাম ও আস্থা অর্জন করেছে। প্রতি বছরের ধারাবাহিকতায় আমরা সেই সুনাম অক্ষুণœ রাখতে বদ্ধপরিকর। চুয়েটের ভর্তি পরীক্ষা অন্যান্য তুলনামূলক ভর্তি পরীক্ষার চেয়ে ব্যতিক্রমী ধারায় হওয়াতে এখানে অসদুপায় অবলম্বলের কোন সুযোগ নেই। দেশের যে কোন প্রান্তের প্রকৃত মেধারী শিক্ষার্থীদের চুয়েটে পড়াশোনার সুযোগ করে দিতে আমরা প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।” চুয়েট ভিসি আরো বলেন, “আমরা ধারণা করছি ভর্তি পরীক্ষার দিন ভোর থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত চট্টগ্রাম শহর থেকে পরীক্ষার্থী ও তাঁদের অভিভাবকবৃন্দসহ আনুমানিক ২০ হাজারের অধিক লোকজন চুয়েট ক্যাম্পাসে আসা-যাওয়া করবেন। সেজন্য ভর্তি পরীক্ষা সুষ্ঠু ও সুন্দরভাবে সমাপ্তি করার লক্ষ্যে আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি ও ট্রাফিক নিয়ন্ত্রণ এবং সার্বিক নিরাপত্তা বজায় রাখাসহ প্রয়োজনীয় প্রশাসনিক সহযোগিতা ও নির্দেশনা প্রত্যাশা করছি।”

চুয়েটের পক্ষে উক্ত সভায় ভর্তি পরীক্ষা কমিটির সদস্য সচিব ও বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার (অতিরিক্ত দায়িত্ব) অধ্যাপক ড. ফারুক-উজ-জামান চৌধুরী, চুয়েটের নিরাপত্তা উপদেষ্টা অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ মিজানুর রহমান, উপ-ছাত্রকল্যাণ পরিচালক ড. মো. আরাফাত রহমান ও জনাব হুমায়ুন কবির উপস্থিত ছিলেন। সভায় বিভিন্ন সেবা সংস্থা ও প্রতিষ্ঠানের পক্ষে চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশ (সিএমপি) এর এডিসি (ট্রাফিক-উত্তর) জনাব মো. ওয়াহিদুল হক চৌধুরী, পাঁচলাইশ সার্কেলের এসি জনাব দেবদূত মজুমদার, চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসনের সহকারী কমিশনার জনাবা সুরাইয়া ইয়াসমিন, চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (সিডিএ) এর সহকারী প্রকৌশলী জনাব আসাদ বিন আনোয়ার, চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের সহকারী প্রকৌশলী জনাব মো. আশিকুল ইসলাম, ডিজিএফআই চট্টগ্রামের উপ-সহকারী পরিচালক জনাব মোঃ মামুন সরকার, নগর ডি.এস.বি’র এডিসি জনাব শাকিলা সোলতানা, জাতীয় নিরাপত্তা গোয়েন্দা (এন.এস.আই) এর সহকারী পরিচালক জনাব মো. রফিকুল ইসলাম, চট্টগ্রাম ফায়ার সার্ভিসের উপ-পরিচালক জনাব মো. আবদুল মান্নান ও উপ-সহকারী পরিচালক জনাবা পূর্ণ চন্দ্র মুৎসুদ্দী, চট্টগ্রাম ডি.এস.বি’র সিনিয়র এ.এস.পি. জনাব মো. নুরুল আফছার ভূঁইয়া, চট্টগ্রাম জেলার বিশেষ শাখার পুলিশ পরিদর্শক জনাব মোহাম্মদ মজিবুর রহমান, রাঙ্গুনিয়া সার্কেলের এ.এস.পি. জনাব মো. আবুল কালাম চৌধুরী, রাউজান থানার ওসি জনাব মো. কেফায়েত উল্লাহ, চট্টগ্রাম-কাপ্তাই বাস মালিক সমিতির জনাব দীপক চৌধুরী ও অর্থ সম্পাদক জনাব মো. কামরুল ইসলামসহ আরো বিভিন্ন সংস্থা ও প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধিগণ উপস্থিত ছিলেন।