এখনও তাজা পাক সেনার নৃশংস তাণ্ডব, এবার-৭১ʼএর সেই ‘গণহত্যা’র স্বীকৃতি পাবে বাংলাদেশ!

68

মোঃ মজিবর রহমান শেখ: ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধের সময় বাংলাদেশে নৃশংস গণহত্যা (বাংলাদেশ Genocide) চালায় পাক সেনা। যদিও তা কখনই স্বীকার করেনি ইসলামাবাদ। খুব শিগগির ঐ গণহত্যার আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি মিলবে, ২১ মে রবিবার এমনটাই দাবি করছেন প্রাক্তন ডাচ মন্ত্রী এবং আন্তর্জাতিক মানবাধিকার কর্মী হ্যারি ভ্যান বোমাল। মহান মুক্তিযুদ্ধে গণহত্যার স্বীকৃতি আদায়ে ‘বাংলাদেশ জেনোসাইড ১৯৭১’ শীর্ষক সম্মেলনের আগে ঢাকায় এক সাংবাদিক সম্মেলনে এই আশ্বাস দিলেন তিনি। ডাচ রাজনীতিবিদ এবং প্রাক্তন সংসদ সদস্য হ্যারি ভ্যান বোমেল, একটি ইউরোপীয় প্রতিনিধিদলের সাথে ২০-২৬ মে পর্যন্ত বাংলাদেশ সফরে ছিলেন যেখানে প্রতিনিধি দল ১৯৭১ সালে পাকিস্তান কর্তৃক সংঘটিত গণহত্যার তদন্ত করেছেন।
মুক্তিযুদ্ধকালের ভয়ংকর গণহত্যার স্বীকৃতি বাংলাদেশের দীর্ঘদিনের দাবি। সেই সূত্রেই ‘বাংলাদেশ জেনোসাইড ১৯৭১’ আন্তর্জাতিক সম্মেলনের আয়োজন হয়েছে ঢাকায়। যেখানে অংশ নিচ্ছেন ইউরোপের মানবাধিকার প্রতিনিধি দল। ইউরোপীয় ইউনিয়ন (EU) দ্রুত এই গণহত্যার স্বীকৃতি দেবে বলে আশা প্রকাশ করেছেন তাঁরা। গণহত্যার স্বীকৃতি আদায়ে সম্মেলনের আয়োজন করেছে প্রজন্ম ৭১, আমরা একাত্তর ও ইউরোপীয় বাংলাদেশ ফোরাম (EBF)। প্রতিনিধি দলটি বাংলাদেশের শিকার, প্রত্যক্ষদর্শী, গণহত্যার গবেষক, শিক্ষাবিদ, নীতিনির্ধারক এবং সরকারি প্রতিনিধিদের সাথে দেখা করার প্রবণতা রাখে। এছাড়াও, দলটি রাজধানী ঢাকা এবং দ্বিতীয় প্রধান শহর চট্টগ্রামের আশেপাশে বেশ কয়েকটি হত্যা ক্ষেত্র এবং যুদ্ধ জাদুঘর পরিদর্শন করে, একটি সরকারী বিবৃতি অনুসারে। সম্প্রতি, মার্কিন কংগ্রেসের দুই সদস্য মার্কিন হাউস অফ রিপ্রেজেন্টেটিভস-এ একটি প্রস্তাব পেশ করেন যাতে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রপতি জো বাইডেনকে সেই সময়ে পাকিস্তানি সামরিক বাহিনীর মানবতাবিরোধী অপরাধের স্বীকৃতি দেওয়ার আহ্বান জানানো হয়।
ঢাকার জাতীয় প্রেস ক্লাবে মানবাধিকার কর্মী বোমাল বলেন, “যদিও আর্মেনিয়ান গণহত্যার স্বীকৃতি পেতে একশো বছর লেগেছিল, মনে হয় বাংলাদেশ গণহত্যার স্বীকৃতি পেতে তত দেরি হবে না। আমার ধারণা, আর কয়েক বছরের মধ্যে সাফল্য আসবে। এক দশকও লাগবে না। যদিও আন্তর্জাতিক কূটনীতির দিক বদল হয়েছে। এর ফলেই দ্রুত উপমহাদেশের অন্যতম নৃশংস গণহত্যার স্বীকৃতি মিলবে বলে জানান । বাংলাদেশ প্রায়ই ১৯৭১ সালের গণহত্যাকে স্বীকৃতি দেওয়ার জন্য জাতিসংঘের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে। গত বছর বাংলাদেশের ১জন প্রতিনিধি গণহত্যার স্বীকৃতির জন্য জাতিসংঘে যান কিন্তু ব্যর্থ হন। বাংলাদেশ সরকারের হিসাবে, প্রায় ৩০ লাখ মানুষ নিহত হয়, ২ লাখের বেশি নারী ধর্ষিত হয়, এবং ১ কোটি মানুষ নিরাপত্তার সন্ধানে সীমান্ত পেরিয়ে ভারতে যেতে বাধ্য হয়।