ঠাকুরগাঁওয়ে স্ত্রীর মামলায় কারাগারে পুলিশ কনস্টেবল

78

মোঃ মজিবর রহমান শেখ ঠাকুরগাঁও জেলা প্রতিনিধি,,স্ত্রীর দায়ের করা নারী নির্যাতনের মামলায় পুলিশ কনস্টেবলকে কারাগারে পাঠিয়েছে ঠাকুরগাঁও জেলা আদালত। যৌতুকের দাবিতে স্ত্রীকে নির্যাতনের মামলায় ঢাকা রাজারবাগ পুলিশ লাইনের এলপি গেটে কর্মরত পুলিশ কনস্টেবল মোঃ রফিকুল ইসলাম (২৭) ৮ জানুয়ারি বুধবার ঠাকুরগাঁও জেলা বিজ্ঞ সিনিয়র ম্যাজিস্ট্রেট (বালিয়াডাঙ্গী) আমলী আদালত-৩ -এ জামিন নিতে হাজির হলে আদালতের বিজ্ঞ বিচারক ডঃ আব্দুল মজিদ তার জামিন না মঞ্জুর করে তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন। মামলা সুত্রে জানা গেছে, ঠাকুরগাঁও জেলার বালিয়াডাঙ্গী উপজেলার ক্ষুদ্র মাছ খুড়িয়া গ্রামের দারাজুল হকের ছেলে ও ঢাকা রাজারবাগ পুলিশ লাইনের পুলিশ কনস্টেবল রফিকুল ইসলাম গেল ২০১৬ সালের ২৩শে মার্চ পাশের গ্রাম নাগেশ্বরবাড়ির হাফিজত আলীর কন্যা মোছাঃ রাশেদা খাতুনকে আট লাখ ৫০ হাজার টাকা দেন মহরানায় বিয়ে করে।পরিবারের লোকজনের মতের ভিত্তিতে আনুষ্ঠানিক বিয়ের পর দাম্পত্য জীবন ভালই কাটাচ্ছিল। পরবর্তীতে পুলিশ কনস্টেবল রফিকুল ইসলাম তার স্ত্রী রাশেদাকে তার বাবার বাড়ি থেকে যৌতুক বাবদ পাঁচ লাখ টাকা আনতে বলে। এতে রাজি না হলে পুলিশ কনস্টেবল তার স্ত্রীর উপর শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন শুরু করে। এক পর্যায়ে স্ত্রীকে মারপিট করে তার বাবার বাড়ি পাঠিয়ে দেয় অভিযুক্ত ওই পুলিশ কনস্টেবল বলে মামলায় উল্লেখ রয়েছে।বিষয়টি আপোষ মিমাংসার জন্য স্থানীয় ভাবে কয়েকবার সামাজিক শালিশ বৈঠক করা হয়। কিন্তু তাতেও পুলিশ কনস্টেবল রফিকুল যৌতুকের পাঁচ লাখ টাকা ছাড়া স্ত্রীকে তার বাবার বাড়িতে ফেলে রেখে যায়। এতে উপায়ন্তর না পেয়ে স্ত্রী রাশেদা যৌতুকের দাবিতে তাকে নির্যাতন সহ ভরনপোষন না দেওয়ার অভিযোগে গেল বছরের ৭ অক্টোবর স্বামী ও তার পরিবারের সদস্যসহ পাঁচ জনকে আসামী করে আদালতে মামলা দায়ের করেন।মামলা পেয়ে তদন্ত সাপেক্ষে আদালতে শুনানীর পর বিজ্ঞ বিচারক পুলিশ কনস্টেবল রফিকুলের নামে গ্রেফতারী পরোয়ানা জারী করেন।  ৮ জানুয়ারি বুধবার জামিন নিতে আসলে তাকে কারাগারে পাঠায় আদালত ।