পাকিস্তানে সংখ্যালঘু খ্রিস্টানদের ওপর নৃশংসতা, গির্জায় হামলা-এলাকায় তোলপাড়

101

মোঃ মজিবর রহমান শেখ, পাকিস্তানে এতদিন টার্গেট করা হয়েছে হিন্দু মন্দির, এবারে আক্রান্ত হচ্ছে গির্জা। কোরআন অবমাননার গুজব ছড়িয়ে, পাকিস্তানের ফয়সালাবাদে জারানওয়ালা তেহসিলে, ধর্মান্ধ জনতা একাধিক গির্জায় ভাংচুর ও আগুন জ্বালিয়ে ধবংস করে দিয়েছে। এছাড়াও ভাঙচুর চালানো হয়েছ বেশ কয়েকজন খ্রিস্টানের বাড়িতে ও বাইবেল পুড়িয়ে খ্রিস্টানদের মারধর করার অভিযোগ উঠেছে পাকিস্তানের পাঞ্জাব প্রদেশে। প্রায় ১০০ জনের বিশাল দল মিলে গির্জায় ভাঙচুর চালাচ্ছে, এমন একটি ভিডিও ভাইরাল হয়েছে। পরিস্থিতি সামলাতে প্যারা মিলিটারি রেঞ্জার্স মোতায়েন করা হয়েছে। স্থানীয় খ্রিস্টান নেতা আকমল ভাট্টি বলেন, অন্তত ৫টি গির্জা জ্বালিয়ে দেওয়া হয়েছে, সেইসব খ্রিস্টানদের বাড়িতে লুটপাট চালানো হয়। মসজিদ থেকে ইমামরা জনতাদের উস্কানি দেওয়ার পর, এই ঘটনা ঘটেছে বলে জানান তিনি। পাঞ্জাব প্রদেশের ফয়সালাবাদ জেলার জরানওয়ালা রোডে একটি গির্জা ভাংচুর ও অগ্নিসংযোগ করেছে পাকিস্তানি ইসলামপন্থীরা-এমনই ভিডিও সামনে এসেছে। একজন খ্রিস্টান ব্যক্তির বিরুদ্ধে ধর্ম অবমাননার অভিযোগ আনার পর ঘটনাটি ঘটেছে। পাকিস্তানের ফয়সালাবাদে সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের খ্রিস্টানদের ওপর নৃশংসতার একটি ঘটনা সামনে এসেছে। সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্ম X-এ এলাকার অনেক ভিডিও ভাইরাল হচ্ছে। এই ভিডিওগুলিতে দেখা যায় কীভাবে একটি গির্জা ভাঙচুর করছে দুর্বৃত্তদের দল। উত্তেজিত জনতা গীর্জার দেয়ালে আগুন ধরিয়ে দিচ্ছে। এ ঘটনা প্রকাশ্যে আসতেই এলাকায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। উল্লেখযোগ্যভাবে, পাঞ্জাব প্রদেশের ফয়সালাবাদ জেলার জরানওয়ালা রোডে একটি গির্জা ভাংচুর ও অগ্নিসংযোগ করেছে পাকিস্তানি ইসলামপন্থীরা-এমনই ভিডিও সামনে এসেছে। একজন খ্রিস্টান ব্যক্তির বিরুদ্ধে ধর্ম অবমাননার অভিযোগ আনার পর ঘটনাটি ঘটেছে। ঘটনার ভিডিও ভাইরাল হচ্ছে সোশ্যাল মিডিয়ায়। গির্জার আশেপাশে স্থানীয় লোকজন খ্রিস্টানদের বাড়িঘরও ভাংচুর ও আগুন দিয়ে পুড়িয়ে দিয়েছে বলে খবর পাওয়া গেছে। রিপোর্ট অনুসারে, এই বিষয়ে একটি এফআইআর নথিভুক্ত করা হয়েছে এবং পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা করছে। ফয়সালাবাদের একটি খ্রিস্টান সংখ্যালঘু পরিবারের বিরুদ্ধে পবিত্র কোরআন লঙ্ঘনের অভিযোগ আনার পর ঘটনাটি ঘটেছে। এর পর শত শত মানুষ ঘটনাস্থলে জড়ো হয়ে গির্জার চূড়ায় উঠে গির্জায় ভাঙচুর চালায়। এর পর তারা গির্জায় আগুন ধরিয়ে দেয়। গির্জা ভাংচুর করার সময় জনতা ইসলাম বিরোধী স্লোগান দিচ্ছিল। এলাকায় খ্রিস্টানদের বাড়ি ভাংচুরের খবর পাওয়া গেছে। বিশপ আজাদ মার্শাল এই ঘটনার সমালোচনা করে বলেছেন যে “এটা লেখার সময় আমি শব্দের বাইরে। পাকিস্তানের ফয়সালাবাদ জেলার জরানওয়ালার ঘটনায় আমরা, বিশপ, পুরোহিত এবং সাধারণ মানুষ গভীরভাবে ব্যথিত। আমি এই বার্তাটি টাইপ করার সাথে সাথে একটি গির্জা ভবন পুড়িয়ে দেওয়া হচ্ছে। বাইবেল অবমাননা করা হয়েছে এবং খ্রিস্টানদের পবিত্র কুরআন লঙ্ঘনের মিথ্যা অভিযোগ এনে হয়রানি ও নিগ্রহ করা হয়েছে। তিনি বলেন আমরা সকল নাগরিকদের সুরক্ষার জন্য অবিলম্বে হস্তক্ষেপ করার জন্য আইন প্রয়োগকারী এবং ন্যায়বিচার সরবরাহকারী ব্যক্তিদের কাছ থেকে ন্যায়বিচার ও পদক্ষেপের দাবি জানাই এবং আমাদের আশ্বস্ত করি যে আমাদের জীবন আমাদের নিজস্ব মাতৃভূমিতে মূল্যবান যেটি সবেমাত্র স্বাধীনতা উদযাপন করেছে।” চরমপন্থীদের আক্রমণে জ্বলছে পাকিস্তান। খ্রিষ্ট ধর্মীয় মানুষদের একের পর এক গির্জায় এবং বাড়িতে আগুন লাগিয়ে দেওয়া হচ্ছে, বাড়িঘরেও লুটপাট চালানো হচ্ছে , আতঙ্কে ঘরছাড়া হয়েছেন শয়ে শয়ে মানুষ।আগেই এই বিষয়ে গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছিল আমেরিকা। এবার এই ঘটনার তীব্র নিন্দা করল আরব (UAE)। সংযুক্ত আরব আমিরাতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের তরফে গত ১৯ তারিখে এক প্রেস বিবৃতিতে এ কথা জানানো হয়েছে। জেনে রাখা ভালো, গত কয়েক বছরে পাকিস্তানের সংখ্যালঘু হিন্দু, শিখ, হিন্দু ও আহমদীদের বিরুদ্ধে নৃশংসতার অভিযোগ উঠেছে। দেশে সংখ্যালঘুদের ওপর অত্যাচারের অনেক ঘটনা ঘটছে। পাকিস্তানে কুড়ি লক্ষেরও বেশি মানুষ ক্রিশ্চান সম্প্রদায়ভুক্ত, যা পাকিস্তানের মোট সংখ্যালঘুদের ৪২ শতাংশ। এঁদের অধিকাংশই পাঞ্জাবের অধিবাসী। এম এস পি-র তদন্তে দেখা গেছে যে এই বলপূর্বক ধর্মান্তরকরণ এবং বিবাহের একটি স্পষ্ট ছক আছে- ১২ থেকে ২৫ বছরের ভিতরে থাকা ক্রিশ্চান মেয়েদের অপহরণ করা হয় এবং তারপর তাদের ইসলামে ধর্মান্তরকরণ ঘটিয়ে অপহরণকারী অথবা তৃতীয় কোনও ব্যক্তির সঙ্গে বিয়ে দেওয়া হয়।