আমৃত্যু পর্যন্ত জনগণের সেবায় নিজেকে নিয়োজিত রাখতে চাই – জেলা পরিষদ সদস্য মাসুদ

19

সঞ্জিত চন্দ্র শীল, হোসেনপুর (কিশোরগঞ্জ):

কিশোরগঞ্জের জেলা পরিষদ সদস্য (হোসেনপুর-২), বিশিষ্ট রাজনীতিবিদ,ব্যবসায়ী, সমাজসেবক ও দানবীর মোহাম্মদ মাসুদ বলেন, ‘আমি আমৃত্যু পর্যন্ত জনগণের সেবায় নিজেকে নিয়োজিত রাখতে চাই এবং সবসময় জণগণের সুখ দুঃখের অংশীদার হতে চাই।’ তিনি গত ১৫ এপ্রিল রাতে হোসেনপুর উপজেলার ঐতিহ্যবাহী শাহেদল বড়বাড়ি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে আয়োজিত উপজেলার সকল জনপ্রতিনিধিদের মিলনমেলা,সাংস্কৃতিক ও ঈদ পুনর্মিলনী অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথির বক্তব্যে হাজার হাজার জনতার সামনে দ্যর্থহীন কন্ঠে এসব কথা বলেন। তিনি আরো বলেন, সকল ষড়যন্ত্র মোকাবেলা করে ও স্থানীয় একটি বিশেষ প্রভাবশালী মহলের বিরোধীতা উপেক্ষা করে হোসেনপুর পৌর মেয়র আব্দুল কাইয়ুম খোকনের সার্বিক সহযোগিতা, গতিশীল নেতৃত্ব ও সঠিক রাজনৈতিক পরিকল্পনা এবং কৌশল বাস্তবায়নের মাধ্যমে তিনি দুই দুইবার কিশোরগঞ্জ জেলা পরিষদ সদস্য নির্বাচিত হয়ে জনগণের সেবায় নিজেকে নিয়োজিত রাখতে সচেষ্ট রয়েছেন। পাশাপাশি নিজের আপন বড়ভাই মোঃ ফিরোজ উদ্দিনকেও শত বাধা ও ষড়যন্ত্র মোকাবেলা করে জনগণকে সাথে নিয়ে শাহেদল ইউপি চেয়ারম্যান নির্বাচিত করে সবাইকে তাক লাগিয়ে দিয়েছেন। তিনি প্রতিপক্ষের একজন উপজেলা চেয়ারম্যান প্রার্থীকে ইঙ্গিত করে বলেন, আপনার নেতিবাচক রাজনীতি কারণেই যেমন সকল রাজনৈতিক পদ পদবী হারিয়েছেন। আর এই কারণে আগামীতেও জনগণ আপনাকে আঁস্তাকুড়ে নিক্ষেপ করবেই। আমি বিশ্বাস করি, ষড়যন্ত্র করে কেউ কোনো দিন রাজনৈতিকভাবে সফল হতে পারেনা। আমি রাজনৈতিকভাবে যত সফলতা অর্জন করেছি সবই সম্ভব হয়েছে আপনাদের পরিবারের সকল সদস্য আস্তা ও বিশ্বাস নিয়ে আমার সাথে থাকার কারণে। তিনি আরো বলেন ,এমন একটি জমকালো ও সুন্দর অনুষ্ঠান উপহার দিতে তিনি ২০২০ সালে উদ্যোগ গ্রহণ করেছিলেন। কিন্তু করোনার লগ-ডাউনের কারনে সম্ভব হয়নি। তাই এবার আপনাদের সবার সাথে সমন্বয় সাধন করে বিশাল বাজেটের ওই জনপ্রতিনিধিদের মিলনমেলা,সাংস্কৃতিক ও ঈদ পুনর্মিলনী অনুষ্ঠান শুরু করতে পেরে নিজেকে ধন্য মনে করছি। আগামীতে আরো ভালো অনুষ্ঠান উপহার দেয়ার প্রতিশ্রুতি দিলে উপস্থিত হাজারো জনতা করতালির মাধ্যমে ভবিষ্যতেও এমনি ভাবে তার পাশে থাকার দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করেন।হোসেনপুর উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা জহিরুল ইসলাম নুরু মিয়ার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত ওই জনপ্রতিনিধিদের মিলনমেলা,সাংস্কৃতিক ও ঈদ পুনর্মিলনী অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন – অনুষ্ঠানের উদ্বোধক হোসেনপুর পৌর মেয়র মোঃ আবুল কাইয়ুম খোকন, বিশেষ অতিথি উপজেলা নিবার্হী কর্মকর্তা অনিন্দ্র মন্ডল, উপজেলা চেয়ারম্যান প্রার্থী এবং উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক ভিপি এম এ হালিম, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান রুওশনারা রুনু, সাবেক মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান সেলিনা সারুয়ার, ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী শফিউদ্দিন সরকার বাচ্চু প্রমুখ। ওই সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে গান পরিবেশন করে রাতভর সবাইকে মাতোয়ারা করে মাতিয়ে রাখেন জননন্দিত ও দেশবরেণ্য কন্ঠশিল্পী আব্দুল কুদ্দুস বয়াতি, বিথিয়া বিথি, গামছা পলাশ, তোশিবাসহ জাতীয় পর্যায়ের ও স্থানীয় শিল্পকলার এক ডজন শিল্পী ও কলাকুশলী। এছাড়া জমজমাট ওই অনুষ্ঠানটি সরাসরি সম্প্রচার ও বিভিন্ন মিডিয়ায় প্রচার করার জন্য বিকেল থেকেই মাঠে উপস্থিত ছিলেন, এনটিভির জেলা প্রতিনিধি এডভোকেট মারুফ, ইউএনবির অধ্যাপক শফিকুল ইসলাম মতি, এটিএন বাংলার সাইফুল মালেক চৌধুরী, আনন্দ টিভির মোঃ টিটু, প্রথম আলোর জেলা প্রতিনিধি তাফসিলুল আজিজ, সমকালের মোস্তফা কামাল,নয়া দিগন্তের উপজেলা প্রতিনিধি মোঃ জাহাঙ্গীর আলম, হোসেনপুর মডেল প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক ওএসটিভির সঞ্জিত চন্দ্র শীল, ভোরের বার্তার মোঃ সোহেল, আমাদের সময়ের খায়রুল ইসলাম প্রমুখ।