করোনা: ঝুঁকি এড়াতে রাঙ্গাবালীতে লকডাউন

31

মাহামুদ হাসান, রাঙ্গাবালী (পটুয়াখালী) প্রতিনিধিঃ পটুয়াখালীর রাঙ্গাবালী উপজেলায় করোনা ভাইরাস সংক্রমণের ঝুঁকি এড়াতে
জনগণকে অতিপ্রয়োজন ছাড়া নিজ নিজ বাসগৃহে অবস্থান করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। পাশাপাশি ঔষধের ফার্মেসি ও নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দোকান ব্যতিত অন্যান্য দোকানপাট বন্ধ রাখতে বলা হয়। বুধবার সকাল থেকে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. মাশফাকুর রহমানের বরাত দিয়ে মাইকিং করে এ ঘোষণা দেওয়া হয়।
এ ঘোষণায় বলা হয়, করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব থেকে সৃষ্ট মহামারির ঝুঁকি মোকাবেলায় এ উপজেলার জনগণকে নিজ নিজ বাসগৃহে অবস্থান করার নির্দেশ প্রদান করা হল। জরুরি প্রয়োজন ব্যতিত বাজার, দোকানপাটে আসা যাবে না। সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে চলাচলের জন্য বলা হলো এবং মাস্ক ব্যতিত চলাফেরা করা যাবে না। এতে আরও বলা হয়, নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দোকান এবং ঔষধের দোকান ব্যতিত অন্যকোন দোকানপাট খোলা রাখা যাবে না।
বুধবার দুপুর ও বিকেলে সরেজমিনে দেখা গেছে, এ ঘোষণার পর থেকে উপজেলা সদরসহ আশপাশের বেশিরভাগ দোকানপাট বন্ধ রাখা হয়েছে। শুধু ঔষধের ফার্মেসি ও মুদি মনোহারি কিছু দোকানপাট খোলা রয়েছে। আর রাস্তাঘাটেও মানুষের চলাচল অনেকটাই কম দেখা গেছে। সারাদেশের সঙ্গে রাঙ্গাবালীর যোগাযোগের প্রধান ঘাট কোড়ালিয়ায় দুপুর ২ টায় গিয়ে দেখা গেছে, জেলা প্রশাসনের নির্দেশনার প্রেক্ষিতে রাঙ্গাবালীর যাত্রীবাহী লঞ্চ, স্পিডবোট ও খেয়া চলাচল বন্ধ রয়েছে।
এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. মাশফাকুর রহমান বলেন, ‘করোনা মোকাবেলায় পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত এ ঘোষণা বহাল থাকবে।’ তিনি আরও বলেন, ‘ইতোমধ্যে করোনা থেকে সুরক্ষার জন্য আমরা বিভিন্ন এলাকায় গিয়ে গিয়ে লোকজনের মাঝে মাস্ক বিতরণ করে যাচ্ছি। পাঁচ হাজার মাস্ক বিতরণ করা হবে। প্রয়োজনে আরও মাস্ক বিতরণ করা হবে।’