শিক্ষক দিবসে আমার স্যারদের শ্রদ্ধা আজ শিক্ষক দিবস

28

মোঃ মুসা: শিক্ষক দিবসে আমার প্রথমেই মনে করি আমার প্রাথমিক শিক্ষকদের এবং এবং ঘরের শিক্ষক আমার মাকে। প্রাথমিক শিক্ষকদের ভিতরে অনেকেই পরপারে চলে গেছে পরপারে চলে গেছেন, আছেন যারা তাদের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জানাই এবং চলে যাওয়া স্যারদেরকে তাদের মাগফেরাত কামনা করছি । শিক্ষক জন হচ্ছে আমার চোখে নক্ষত্রের মতো। বাণী ঃ একজন আদর্শ মা একশো জন বিদ্যালয় শিক্ষকের সমান।-জর্জ হারবার্ট।প্রাইমারিতে যখন আমি ছিলাম আমার প্রিয় কিছু শিক্ষক ছিল। সবাই প্রিয় ছিল সবার কাছে আমিও প্রিয় হয়েছিলাম। এটাই ছিল আমার সবচেয়ে বড় পাওয়া। আমি আমার এক শিক্ষকের কথা মনে করি আমি ক্লাসে অনুপস্থিত ছিলাম দুই দিন তখন আমাকে আমার খবর পাঠিয়েছিলেন আমার বাবার কাছে আমি কেন স্কুলে যাই না সে হাবিবুল্লাহ স্যার‌ শশীভূষণ বাজার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়। তিনি এখন পরপারে আছেন তাঁর আত্মার মাগফিরাত জানাই। আমি ক্লাসে প্রথম স্থান অধিকারের জন্য বেশিরভাগ আমার শিক্ষকের ভালোবাসা থেকেই আমি এগিয়ে গেছি। আরো বাকি স্যারদেরকে আমার শ্রদ্ধা রইল।আমি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের কিছু স্যারদেরকে স্মরণ করি যারা অনেকেই পরপারে চলে গেছেন অনেকেই তাদের প্রতি আন্তরিক শ্রদ্ধা ও তাদের রুহের মাগফিরাত জানাই।সেখান থেকে সবচেয়ে বেশি স্মরণ করি, অভিলাষ স্যার ,সালাম স্যার ইকবাল স্যার. সুরমা ম্যাডাম, যারা পরপারে চলে গেছেন তাদের ভিতর আমি তাদের শ্রদ্ধা জানাই মাগফিরাত কামনা করি তারা হচ্ছেন সাইদুল্লাহ স্যার হুজুর স্যার আরো অন্যান্য স্যার।।তারপরে আমার চরম সংকট কালে আমি উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয় ভর্তি হই । রসুলপুর ডিগ্রী কলেজ। আমার বিজ্ঞান বিভাগের সকল স্যারদের কে আন্তরিক শ্রদ্ধা ।বিগত বাংলা শিক্ষক ফসিউল আলম স্যার কে তার মাগফেরাত কামনা করি। ইংরেজি বিভাগের আমার প্রিয় স্যার আমাদের অভিভাবকের মতো। ইংরেজিতে অনেক এগিয়ে গেছে তার জন্য। স্যার কে বেশি স্মরণ করি সে আমার প্রভাষক আবদুল মান্নান স্যার। আন্তরিক শ্রদ্ধা এবং জানাই। এবং অনার্স লেভেলে চরফ্যাসন সরকারি কলেজের আমার ডিপার্টমেন্ট এর সকল স্যারদের কে শ্রদ্ধা।