জুনের শেষে সশরীরে পরীক্ষা নেবে জবি

50

জবি প্রতিনিধি: জুনের শেষ দিকে সশরীরে পরীক্ষা নেওয়ার প্রাথমিক সিদ্ধান্ত নিয়েছে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ডিনস কমিটি। সরকারের কাছে অনুমতি চাওয়া সাপেক্ষে চূড়ান্তভাবে ১৫ জুনের মধ্যে পরীক্ষা নেয়ার সিদ্ধান্ত শিক্ষার্থীদের জানিয়ে দেয়া হবে। সোমবার (২৪ মে) বিশ্ববিদ্যালয়ের দায়িত্বপ্রাপ্ত উপাচার্য অধ্যাপক ড. কামালউদ্দিন আহমদ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। ডিনস কমিটির সভায় এসব সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে বলে জানা যায়। উপাচার্য অধ্যাপক ড. কামালউদ্দিন আহমদ বলেন, শিক্ষার্থীদের প্রায় দেড় বছর সময় নষ্ট হয়েছে। তা ফিরিয়ে দেওয়া সম্ভব না। তবে আমরা শিক্ষার্থীদের খুব দ্রুত সময়ের মধ্যে মানে আগামী জুনের শেষে বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্লাস রুমে বসিয়ে পরীক্ষা নিতে চাইবো এবং অবশ্যই সশরীরে নেয়া হবে। এক্ষেত্রেও অবশ্যই সামাজিক দূরত্ব মেনে চলতে হবে। একাধিক ডিনের সাথে কথা বলে জানা যায়, বিশ্ববিদ্যালয় খুলা ও পরীক্ষা সংক্রান্ত বিষয়ে কি করা যায় সেসব বিষয়ে কথা বলার জন্য সোমবার মিটিং হয়। মিটিং এ প্রাথমিক একটা সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। পরবর্তীতে বিভাগীয় চেয়ারম্যানদের সাথে কথা বলে তাদের থেকে পরামর্শ নিয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেয়া হবে। সিদ্ধান্ত মোতাবেক ৩০ মে এর পর সরকার শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের মেয়াদ বাড়ালে পরবর্তীতে আমরা চেয়ারম্যানদের সাথে মিটিং (৭ জুনের মধ্যে) করবো। মিটিং এর পর আগামী ১৫ জুনের মধ্যে সরকার/মন্ত্রণালয়ে যুক্তি সাপেক্ষে অনুমতি চেয়ে পরীক্ষা নেয়ার আবেদন করবো। ডিনরা আরো জানায়, ইতিপূর্বে নেয়া অনার্স মাস্টার্স পরীক্ষার মতোই স্বাস্থ্যবিধি মেনে পরিকল্পনা করে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত জানানো হবে। পরিক্ষা সংক্রান্ত বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজ্ঞান অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. রবীন্দ্রনাথ মন্ডল জানায়, আমরা প্রাথমিকভাবে একটা সিদ্ধান্ত নিয়েছি। যদিও ফাইনাল একটা সিদ্ধান্ত চেয়ারম্যানদের সঙ্গে ডিনরা বসে নিবেন। কিন্তু একটা বিষয়ে সিদ্ধান্ত হয়েছে যে আমরা সরকারকে চিঠি দেবো যে আমরা স্বাস্থ্যবিধি মেনে, যত নিয়মকানুন আছে সবকিছু অনুসরণ করে পরিক্ষা নিতে চাই। তবে তা অনলাইন পরিক্ষা নয়। কোনো ডিন অনলাইনে পরিক্ষা নেওয়ার পক্ষবাদী নয়। আমরা ক্যাম্পাসে পরিক্ষা নিব, যেই পরিক্ষা নেওয়ার জন্য কিছুদিন আগে যেমন সকল প্রত্যেক ডিপার্টমেন্টে এমনভাবে আমরা রুটিন করব যেন ক্যাম্পাসে ছাত্রছাত্রীদের উপস্থিতি খুব বেশি না হয়। তো ঠিক সেইভাবে স্বাস্থ্যবিধি মেনে ফিজিক্যালি ছাত্রছাত্রীদের পরিক্ষা নেয়া হবে। তিনি আরো জানান, ৩০ মে পর্যন্ত সরকারি নিষেধাজ্ঞাটা আছে। ৩০ মে এর পরে কি সিদ্ধান্ত আসে সেটা দেখে আমরা সরকারকে লিখব যে স্বাস্থ্যবিধি মেনে ছাত্রদের কে নিয়ে আমরা পরিক্ষা নেবো। যেহেতু আমাদের হল নেই, আমাদের সুবিধা আছে। অত গ্যাদারিং এর সমস্যা হবে না। আর আমরা তো সকল ফ্যাকাল্টি, সকল ডিপার্টমেন্টে পরিক্ষা একই দিনে নিব না যাতে করে ক্যাম্পাসে গ্যাঞ্জাম না হয়। তো সেইটা মেনেই আমরা পরিক্ষা টা নিতে চাই। আমরা ১৫ ই জুন একটা ডেট রেখেছি ঠিকই তারপরেও হয়তো বা একটু পিছিয়ে যেতে পারে। সর্বোচ্চ ৩০ জুনের মধ্যে আমরা এই কার্যক্রম শেষ করব। এর মধ্যে যদি সরকার থেকে নির্দেশনা আসে যে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে যাচ্ছে তাহলে তো কোনো কথায় নেই। আর যদি নির্দেশনা না আসে তাহলে আমরা স্বাস্থ্যবিধি মেনে ১৫ জুলাই থেকে পরিক্ষা নেয়া শুরু করবো। উল্লেখ্য যে, গত বছরের ২০ ডিসেম্বর থেকে যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি মেনে করোনায় আটকে থাকা অনার্স ও মাস্টার্স শেষ বর্ষের শিক্ষার্থীদের ফাইনাল পরীক্ষা নিয়েছে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।